রামপালে আ.লীগ নেতা খুনের ঘটনায় মামলা

Follo_upবাগেরহাটের রামপালে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মাজেদ সরদার (৬৫) খুনের ঘটনার রামপাল থানায় মামলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) রাত পৌনে ১০টার দিকে নিহতের স্ত্রী ফেরদৌস খাতুন বাদী হয়ে রামপাল থানায় ওই হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের আসামী করা হয়েছে।

সোমবার রাতে উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের কালিকা প্রসাদ গ্রামের ডোবার গেট নামক স্থানে দুর্বৃত্তরা রাস্তার পাশে ফেলে কুপিয়ে ও জবাই করে আব্দুল মাজেদকে হত্যা করে

নিহত আব্দুল মাজেদ সরদার রাজনগর গ্রামের মৃত আক্কাস সরদারের ছেলে এবং স্থানীয় রাজনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক।

রাজনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিখিল মন্ডল জানান, আব্দুল মাজেদ খুলনায় ক্রিসেনন্ট জুট মিলসে চাকরি করতেন। অবসরে যাবার পর তিনি গ্রামে এসে বসবাস শুরু করেন।

দুপুরে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে তার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিহতের মাথা ও চোখের কাছে ধারালো অস্ত্রের তিনটি আঘাত এবং শ্বাসনালী সম্পূর্ণ কেটে ফেলা হয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

তবে হত্যাকান্ডের ২৪ ঘন্টা পার হলেও পুলিশ হত্যার কারণ সম্পর্কে এখনও সুনিদৃষ্ট ভাবে কিছু জানাতে পারেনি। এদিকে এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঐ এলাকা থেকে তিন যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

এরা হলেন- কালিকা প্রসাদ গ্রামের ওয়াদুদ ইজারদারের ছেলে রবি ইজারদার (২৮), একই গ্রামের আলতাফ শেখের ছেলে ইলিয়াস শেখ (৩২) এবং বুজবুনিয়া গ্রামের জলিল লস্করের ছেলে আলম লস্কর (৩০)।

নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, দেশের একমাত্র আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক নৌ-পথটির নব্যতা বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মংলা-ঘষিয়াখালী অংশের সংযোগ খাল খনন ও এসব খালের অবৈধ বাঁধ অপসারণে প্রশাসনকে সহায়তা করায় স্থানীয় প্রভাবশালী অবৈধ খাল দখলকারীরা তাকে হত্যা করিয়েছে।

রামপাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, এই ঘটনায় কিছু আগে একটি মামলা (মামলা নং ৩০২/৩৪) হয়েছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ ছাড়াও জমি সংক্রান্ত বা রাজনৈতিক বিরোধের মত ঘটনার সম্ভাবনা মাথায় রেখে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

নিহতের মেঝ ছেলে মো. ইব্রাহিম সরদার বলেন, ‘আব্বা পাশের পাড়ার কালেখাঁর বেড় দীঘির পাড় মসজিদ থেকে এশার নামাজ শেষে বাড়ী ফিরছিলেন। কালিকা প্রসাদ ডোবার গেট পর্যন্ত আসলে দুর্বৃত্তরা আব্বুকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে। আব্বুর পকেটে এ সময় এলাকার অবৈধ দখল হওয়া খালের তালিকা ও দলখদারদের নাম লেখা কাগজ ছিল। আমার বিশ্বাস, খালের অবৈধ দখলদাররা আমার বাবাকে হত্যা করেছে।’

একই অভিযোগ করেছেন স্থানীয় রাজনগর ইউপি চেয়ারম্যান ও নিহতের চাচাত ভাই সরদার আব্দুল হান্নান ডাবলু এবং মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল রক্ষা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি অ্যাড. মহিউদ্দিন শেখ।

এ বিষয়ে ওসি বলেন, এখনও ঐ হত্যা ঘটনার কোন প্রতক্ষদর্শী পাওয়া যায়নি। আটককৃতরা ঘটনার রাতে ঐ এলাকায় চিংড়ি ঘেরে মাছ ধরছিলেন। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকারীদের সম্পর্কে হয়তো কোন তথ্যমিলতে পারে এমন সম্ভাবনা মাথায় রেখে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের আটক করা হয়েছে।

২০ অক্টোবর :: স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,
বাগেরহাট ইনফো ডটকম।।
এস/আইএইচ/এনআরএ/বিআই
বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1300 Posts)