বাগেরহাটে ৫৭৭ মণ্ডপে দুর্গোৎসব

অলীপ ঘটক, চিফ নিউজ এডিটর | বাগেরহাট ইনফো ডটকম

bagerhat-durga-puja-protimaভাস্করদের নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় তৈরি হয়েছে প্রতিমা। দেবী দুর্গা, লক্ষ্মী, কার্তিক, স্বরসতি ও গণেশের বিমূর্ত অবয়বে শেষ হয়েছে রঙের কাজও। এখন অপেক্ষা বোধনের।

রাত পোহালে পূজার ঢাক বাজবে বাগেরহাটের ৫৭৭ মণ্ডপে। সারাদেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শারদীয় দুর্গা উৎসবে ধূপ ধনুচি আর ঢাকের তালে মেতে উঠবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের জেলা বাগেরহাট।

গেল ক’বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও জেলার সর্ববৃহৎ আয়োজন সদর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের হাকিমপুর গ্রামের শিকদার বাড়ির পূজা মণ্ডপে। বিভিন্ন দেব-দেবীর ৬০১টি প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে এই মণ্ডপে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে জানান, এবছর জেলার ৯ উপজেলায় মোট ৫৭৭ মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিমার সংখ্যার দিক দিয়ে এবার দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ দুর্গা মণ্ডপটি বাগেরহাটের শিকদার বাড়িতে।

শিকদারবাড়ি দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি দুলাল শিকদার বলেন, ‘ব্যক্তিগত উদ্যোগে গত পাঁচ বছর ধরে বাড়িতে পূজার আয়োজন করে আসছি। শুরু থেকেই সবার উৎসাহ আর সহযোতিতায় ২০১০ সালে প্রথম বার ৩০১টি প্রতিমা থেকে এবার ৬০১টি প্রতিমা নিয়ে সব থেকে বড় দুর্গাপূজা আয়োজন করেছি। আশা করি, দর্শনার্থীদের মন ভরে যাবে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের স্নাতকোত্তর বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী দিব্যতনু দাসের নেতৃত্বে ১০ জন আটিস্ট (শিল্পী) পুকুরের মাঝখানে ৪০ ফুট উঁচু প্রতিমায় কৈলাশ পর্বতের কাহিনীর অংশ বিশেষ তুলে ধরেছেন।

পুকুরের মাঝে স্থাপন করা ৪০ ফুট উঁচু এই প্রতিমায় সবার উপরে রয়েছে মহাদেব। এরপর রাম লক্ষণ, সীতা ও হনুমান। মহাদেব ও রামের হাত আর্শিবাদ করা অবস্থায় থাকবে।

শিকদারবাড়ি পূজা মণ্ডপে ৫ মাস ধরে প্রতিমা তৈরী করেছেন খুলনার কয়রা উপজেলার হাতিয়ার ডাঙ্গা গ্রামের কারিগর বিজয় কৃষ্ণ বাছাড়। তিনি বলেন,‘গত বৈশাখ মাস থেকে ১৪ জন সহকারী নিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে ৬০১টি প্রতিমা তৈরির করেছি। রাত পোহালে শুরু হবে শারদীয় দুর্গোৎসব।’

আয়োজকদের অন্যতম ব্যবসায়ী লিটন সিকদার বলেন, ‘হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ও দর্শনার্থীদের মন জয় করতে প্রতিমার সংখ্যা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। গত বছর ৪৫১টি প্রতিমা নিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করা হয়। সেই সময়ের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী এবার ৬০১টি প্রতিমা নিয়ে এতবড় আয়োজন।’

বাগেরহাট জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অমিত রায় বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, বাগেরহাটে জাকজমকপূর্ণ পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপিত হবে। গত কয়েক বছর ধরে জেলার বেশ কয়েকটি মণ্ডপে শতাধিক প্রতিমা তৈরি হচ্ছে।

হাকিমপুর শিকদার বাড়ির পূজামণ্ডপ ছাড়াও বাগেরহাট সদরের কাড়াপাড়া রামকৃষ্ণ সেবাশ্রমের দুর্গাপূজা, চুলকাঠি বাজারের বণিকপাড়া সার্বজনীন পূজা মণ্ডপ এবং ফকিরহাট উপজেলার মমতলা সার্বজনীন পূজা মণ্ডপেও স্থান পেয়েছে দেবদেবির  নানা কল্প কাহিনী।

বাগেরহাট জেলার পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে জানান, শারদীয় দুর্গা উৎসব ঘিরে জেলার সকল পূজা মণ্ডপগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। পূজার সময় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি এবং স্বেচ্ছা সেবকদেরও সহায়তা নেওয়া হচ্ছে।

এজি/এসআই/বিআই/০৬ অক্টোবর, ২০১৬

বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1300 Posts)