কুকুরের কামড়ে আহত ৩০, কামড়ানো গাভির দুধ পান করায় আতঙ্ক, হাসপাতালে ভিড়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাগেরহাট ইনফো ডটকম

কুকুরের কামড়ে বাগেরহাট সদরের দুটি গ্রামের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে নারী ও শিশুসহ ১২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
অন্যদিকে জেলার ফকিরহাট উপজেলায় কুকুরে কামড়ানো গরুর দুধ পান করে অসুস্থ হওয়ার আতঙ্কে এক গ্রামের অন্তত ৯০ জন বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

জানা গেছে, বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বাগেরহাট সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ও মির্জাপুর গ্রামে একটি কুকুরের কামড়ে ৩০ জন আহত হন। পরে এলাকাবাসী ওই কুকুরটিকে পিটিয়ে হত্যা করেছে।

আহতরা বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার কাড়াপাড়া গ্রামের আনিস হাওলাদার (১০), সুমন শেখ (১০), তাওহিদুল ইসলাম (১৩), সোভিক দে (১৪), মিরাজুন্নাহার লুসি (৩৮), ময়না বেগম (৬০), সাইদ শেখ (৩৫), আনোয়ারা বেগম (৩০), জাইমা বেগম (৬০), মো. আলী শেখ (৪৫), হালিমা বেগম (৫৫) ও সবিতা পালকে (৪৫) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মশিউর রহমান বলেন, আহতদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুকুরে কামড়ানোর ক্ষত রয়েছে। তাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। যাদের শরীরে ক্ষতের পরিমান বেশি এমন ১২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মো. আলী শেখ বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, ‘আমি রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলাম। এ সময় পেছন থেকে আসা একটি কুকুর হঠাৎ করে আমার পায়ের দিকে কামড়ে ঝুলে থাকে। আমি চিৎকার শুরু করলে কুকুরটি আমার পেছনের মাংসে কামড়ে ক্ষতবিক্ষত করে ছেড়ে দিয়ে দৌড় দেয়। পরে স্বজনেরা আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করে।’

আহত সবিতা পাল বলেন, ‘আমি বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাস্তায় উঠতেই একটি কুকুর দৌড়ে এসে আমার ডান হাত কামড়ে ধরে। অনেক চেষ্টায় কুকুরের হাত থেকে রক্ষা পাই। হাসপাতালে এলে প্রতিষেধক ভ্যাকসিন দিয়েছে।’

কাড়াপাড়া গ্রামের বেল্লাল হোসেন বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, ‘গত দুই দিনে কাড়াপাড়া ও মির্জাপুর গ্রামের নারী-শিশুসহ অন্তত ৩০ জনকে কামড়ায় ওই কুকুরটি। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে আমরা এলাকাবাসী সবাই মিলে কুকুরটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছি।’

http://paimages.prothom-alo.com/contents/cache/images/640x359x1/uploads/media/2018/05/17/0331a0fe7dc2ee2380d0b75a2384299b-5afda83a47f64.jpg

এদিকে ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের চাকুলি গ্রামের একটি গাভিকে কুকুর কামড়েছে বলে চিকিৎসকরা নিশ্চিত করলে বৃহস্পতিবার ওই গ্রামে আতঙ্ক দেখা দেয়।

কুকুরে কামড়ানো গাভির দুধ পান করে আতঙ্কিত নারী-শিশুসহ অন্তত ৯০ জন বৃহস্পতিবার বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাঁদের কুকুরে কামড়ানো প্রতিষেধক ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।

গরুর মালিক বেল্লাল শেখ বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, ‘আমার গাভির দুধ চাকলি গ্রামের দশটি পরিবারকে দিয়ে থাকি। বুধবার আমার পোষা গুরুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পশু চিকিৎসককে দেখাই। তিনি গরুটি দেখে কুকুরে কামড়িয়েছে বলে নিশ্চিত হন। তবে কবে কখন, কোথায় গাভিটিকে কুকুরে কামড়েছে, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।’

আতঙ্কের খবর ছড়িয়ে পড়লে বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ফোরকান শিকারি তাদের হাসপাতালে নিয়ে যান বলে জানান।

ইউপি সদস্য ফোরকান শিকারি বলেন, ‘চাকুলি গ্রামের বেল্লাল শেখের পোষা গরুর দুধ ওই গ্রামের প্রায় দশটি পরিবার নিয়মিত পান (টাকার বিনিময়ে জোগান) করে আসছে। ওই দশটি পরিবারে সদস্যসংখ্যা ১০০ জনের বেশি। তারা না জেনে ওই কুকুরে কামড়ানো গাভির দুধ পান করতে থাকে।’

বৃহস্পতিবার কুকুরের কামড়ে ৩০ জন অসুস্থ হয়ে পড়ার খবর জানাজানি হলে ওই পরিবারগুলোর সদস্যরা জলাতঙ্কের আশঙ্কায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তারা বিষয়টি জানালে আমি বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি।

গরুর মালিক বেল্লাল শেখ বলেন, ‘আমার গাভির দুধ চাকলি গ্রামের দশটি পরিবারকে দিয়ে থাকি। বুধবার আমার পোষা গুরুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পশু চিকিৎসককে দেখাই। তিনি গরুটি দেখে কুকুরে কামড়িয়েছে বলে নিশ্চিত হন। তবে কবে কখন, কোথায় গাভিটিকে কুকুরে কামড়েছে, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।’

চিকিৎসকেরা বলছেন, এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। ভ্যাকসিন নিলেই জলাতঙ্কের আশঙ্কা কেটে যাবে।

ডা. মশিউর রহমান বলেন, নারী ও শিশুসহ আতঙ্কিত ৯০ জন হাসপাতালে আসার পর তাদের প্রতিষেধক হিসেবে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এক মাসের মধ্যে চারটি ভ্যাকসিন নিলে তারা পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যাবে। কাউকে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

এইচ//এসআই/বিআই/১৭ মে ২০১৮

বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1472 Posts)