ডাকাতি নয়, ব্যবসা- দাবী দস্যুদের

Doshu-in-SundorBon-10বিশ্বের সর্ববৃহৎ ‘ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট’ সুন্দরবন। ১০ হাজার বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এ বনের ৬ হাজার ১৭ বর্গ কিলোমিটারেরই মালিকানা বাংলাদেশের। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রক্ষাকবচ এই বনকে ঘিরে জীবন ও জীবীকা প্রায় ৭ লাখ পরিবারের। কিন্তু জলদস্যু ও বনদস্যুর হাতে জিম্মি এই মানুষগুলো।
গোটা ত্রিরিশেক ছোট-বড় দস্যুবাহিনীর আধুনিক অস্ত্রের ভয়ে সন্ত্রস্ত বনজীবীরা। র‌্যাব পুলিশের সঙ্গে ক্রসফায়ারে পরে কোনো কোনো বাহিনীর প্রধান মারা পড়ে। ভেঙ্গে যায় সে বাহিনী কিন্তু শেষ হয়ে যায় না। আবার গড়ে ওঠে নতুন বাহিনী। শুরু হয় নতুন নতুন নামে নতুন সন্ত্রাস!! আর এসব দস্যু বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না এই বনের প্রধান আর্কষণ রয়েল বেঙ্গল টাইগার, চিত্রল হরিণ এমন কি কুমিরও।
টান দুই সপ্তাহের অভিযানে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশ ঘুরে এসে এসব বিষয়ে রিপোর্ট তৈরী করেছেন আমাদের স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট রহমান মাসুদ। আজ ৬ষ্ঠ পর্ব।
ডাকাতি নয়, আমরা সুন্দরবনে ব্যবসা করি। আমাদের মতো এতোবড় ‘ফার্মকে’ (!)টাকা না দিয়ে জঙ্গলে কেউ ব্যবসা করতে পারবেন না।

আমরা ৫০ জন মানুষ। সকলের আধুনিক অস্ত্রপাতি। সবাই প্রতি মাসে বেতন পান। সবার খাবার, কাপড়, বৌ-বাচ্চার ভরণ-পোষন সবই এ ‘ফার্মের’ আয়ের ওপর নির্ভরশীল। এর সঙ্গে আছে নিত্য-নতুন অস্ত্র ও গোলা-বারুদ সংগ্রহের খরচ। সব মিলিয়ে খরচ অনেক। প্রতি মাসে ৪ থেকে ৫ কোটি টাকা আয় না হলে এতো বড় বাহিনী চালানো সম্ভব নয়।

কথাগুলো বলছিলেন ‘রাজু বাহিনী’র ব্যবস্থাপক মারুফ। রামপালের বাসিন্দা এই মারুফ এ বাহিনীতে আছেন প্রায় ৫ বছর। এরই মধ্যে তিনি রাজু বাহিনীর সকল আয়-ব্যয়ের হিসেব দেখার দায়িত্ব পেয়েছেন।

তিনি বলেন, সুন্দরবন সংলগ্ন তিন জেলার সকল মাছ-কাঁকড়ার ব্যবসায়ী, দাদনদার, মহাজন, মধু ব্যবসায়ী, চোরাই কাঠ ব্যবসায়ী, হরিণ, বাঘ ও কুমির শিকারিকেই আমাদের টাকা দিয়ে ব্যবসা করতে হয়।

মারুফ বলেন, সাধারণত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আমাদের একটি চুক্তি হয়। ৪/৫ মাসের একটি সিজনে মাছ, কাঁকড়া ও পোনার নৌকা প্রতি চাঁদা নির্ধারণ করা আছে ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা। যারা টাকা দেন না তাদের নৌকা ধরে আনা হয় অথবা নৌকার যেকোনো একজনকে ধরে এনে জিম্মি করা হয়। মুক্তিপণ হিসেবে তখন ওই ধরে আনা ব্যক্তির মহাজন বা পরিবারের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা থেকে এক লাখ টাকা আদায় করা হয়।

তিনি বলেন, আমাদের দলনেতা রাজু (ছোট মিয়া) বর্তমানে ভারতে আছেন। আমরা সবাই তাকে সম্মান করি। তার নির্দেশনায় দল চলে। ছোট মিয়ার নির্দেশনা মতো এক একজন এক এক দায়িত্ব ভাগ করে নিয়েছি। ইলিয়াস পুরো বাহিনীর দেখ-ভাল করেন। জাহাঙ্গীরের কাজ পূর্ব বাঁদার অংশের ব্যবসা দেখা। রফিক দায়িত্বে আছেন পশ্চিম বাঁদার। ইলিয়াস বনের অন্য বাহিনীর বিরুদ্ধে অপারেশন পরিচালনা করেন। আমি আছি সব হিসেব পত্তর, আয়-ব্যয় দেখভালে।

দলের ব্যবস্থাপক আরো জানান, মোবাইলেই টাকা পাঠান ব্যবসায়ীরা। টাকা পেলে আমরা ধরে আনা লোকজনকে নিরাপদে ডাঙ্গায় পাঠানোর ব্যবস্থা করি।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা সম্পর্কে তিনি বলেন, তারা আমাদের কিছু করতে পারে না। আমাদের ধরার মতো কোনো ইচ্ছা বা শক্তিও তাদের নেই। কোস্টগার্ডের ক্যাম্পগুলোতে যে কয়জন লোক থাকেন, তাদের দিয়েতো আমাদের কিছু করা সম্ভব না। তাই আমরাও তাদের ঘাটাতে যাই না, তারাও আমাদের ঘাটাতে আসেন না।

মারুফ বলেন, আমাদের টাকায় র‌্যাব-কোস্টগার্ডের পোষাক থেকে শুরু করে সিগারেট সবই চলে! তাই তারা অভিযানে বের হওয়ার আগেই আমরা খবর পেয়ে যাই। এমনও হয়েছে, আমরা যখন যে খালে থাকি সেই খালে ঢুকে পড়লে আমরা টেলিফোনে আমাদের অবস্থান জানালে কোস্টগার্ড বোট ঘুরিয়ে চলে যায়।

Doshu-in-SundorBon-09তিনি আরো বলেন, আমরা কেবল ভয় পাই কেবিন ক্রুজারগুলোকে। তাই বড় নদীতে আমরা দিনের বেলায় থাকি না। ছোট খালের মধ্যে থাকি। সরকারি বাহিনীগুলো আবার ছোট খালগুলোকে ভয় পায়। প্রতিটি খালের মুখেই আমাদের পাহারা চৌকি থাকে। তাই খালে ঢুকলে তারা জীবন নিয়ে ফিরতে পারবে না। আর বিকালের পর বনে কোনো বাহিনীর কোনো তৎপরতা থাকে না। বিকেল থেকেই পুরো বন কেবল আমাদেরই। সরকারি বাহিনীর ক্ষমতা নাই বনের মধ্যে কাঁদা আর শুলোয় আমাদের সঙ্গে দৌঁড়ায়।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ও অভিযান সম্পর্কে মারুফ বলেন, এর সবই লোক দেখানো। অভিযানের নামে বাহিনীগুলো কেবলই সরকারি টাকার শ্রাদ্ধ করে। ১০০ লিটার তেল পুড়িয়ে এক হাজার লিটারের বিল আদায় করে। সুন্দরবনে চাকরি করে যাওয়া বন বিভাগ ও কোস্টগার্ডের অফিসাররা আমাদের টাকায় বিপুল সম্পত্তির মালিক বনে যান। তাই বদলি হয়ে গেলেও তারা আবার বনে আসার জন্য উঠে-পড়ে লাগেন।

সুন্দরবনে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ সম্পর্কে তিনি জানান, কেবলমাত্র একটি প্রকৃত যুদ্ধ বনে হয়েছিল। বাকিগুলো ডাঙ্গা থেকে ধরে এনে নাটক সাজায় তারা।

এতো অস্ত্র-গুলি আসে কোথা থেকে? এ প্রশ্নের জবাবে মারুফ জানান, সবই আসে খুলনা থেকে। এগুলো সরবরাহের লোক আছেন। একটি এইট শ্যূটার গানের বাজার মূল্য সাড়ে চার লাখ টাকা হলেও আমরা দেই সাড়ে সাত লাখ টাকা। একটি গুলির দাম ৫শ’ টাকা হলেও আমরা দেই ১১শ’ টাকা। তাই ‘জিনিস’ পেতে কোনো কষ্ট হয় না।

তিনি বলেন, গুলির মূল সরবরাহ আসে প্রশাসনের কাছ থেকেই। টাকা দিলে কি না হয়রে ভাই!

জিম্মিদের সঙ্গে আপনারা কি ধরনের আচরণ করেন- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের দলের অনেক সদস্যই এক সময় আমাদের হাতে বন্দি হয়ে এসেছিলেন। কিন্তু আমাদের ব্যবহারে মুগ্ধ হয়ে তারা আর ফেরত যাননি। এখন তারা আমাদের দলেরই গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। বর্তমান ভারপ্রাপ্ত দলনেতা ইলিয়াসকেও এক সময় ধরে এনেছিলেন ছোট মিয়া (রাজু)। এখন তিনি এ দলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান।

মারুফ বলেন, আমরা সবার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করি। আমাদের খাবার, পানি, ওষুধ সবাই সমানভাবে ভাগ করে নিচ্ছেন।

Doshu-in-SundorBon-08এ সময় নৌকায় রান্নার কাজে সহযোগিতা করা শ্যামনগরের নোয়াবেকির হাফিজুর, রামপালের পেড়িখালির মিলনকে দেখিয়ে মারুফ জানান, তারা সপ্তাহখানেক হলো আমাদের কাছে এসেছেন। এখন আমাদের লোকের মতোই আমাদের সঙ্গে মিশে গেছেন। জামিন হয়ে গেলে তারা চলে যাবেন।

তিনি বলেন, ছোট ছোট কিছু বাহিনী গড়ে উঠেছে। তারা জেলেদের অত্যাচার করে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে অপারেশন চালাচ্ছি। কিন্তু আমাদের দেখলেই তারা নৌকা ফেলে জঙ্গলে ঢুকে পড়ে।

জঙ্গলের আয় সম্পর্কে তিনি বলেন, গোলপাতায় ভালো আয় হয়েছে। গরানের পারমিট দিলে বছরে আরো কয়েক কোটি টাকা আয় হবে। এছাড়া ইলিশ মৌসুমে সাগরের আয় হয় কোটি কোটি টাকা। চট্টগ্রামের একটি ফিসিং বোট ধরলেই কয়েক লাখ টাকা আদায় হয়। এছাড়া নিয়মিত আয়তো আছেই।

টাকার ভাগ-বাটোয়ারা সম্পর্কে তিনি বলেন, অস্ত্রের ভাড়া বাবদ মোট আয়ের ৪০ শতাংশ চলে যায়। এরপর সিনিয়র-জুনিয়র হিসেবে বাকি টাকার হিসেব হয়। ভাগের টাকা সদস্যদের স্বজনদের কাছে চলে যায় মোবাইলের মাধ্যমে।

দলের জন্য বাজার আসে সাতক্ষীরা, মংলা ও খুলনা থেকে বলেও জানান তিনি।

এর কিছুক্ষণ পরই একটি বড় ট্রলার ঢুকলো খালে। নৌকা ভরা ফ্রেস পানির বোতল, টাইগার এনার্জি ড্রিংকস, ড্রাম ভরা রান্নার পানি আর বস্তা বস্তা বাজার। মৌসুমী ফল- আম, জামরুল, লিচু আর তরমুজ।

বনের হরিণ শিকার সম্পর্কে মারুফ বলেন, আমরা হরিণ মারি নিজেদের খাওয়ার জন্য। তবে মাস দু’য়েক আগে দুটি বাঘ মেরেছিলাম। এরা আমাদের থাকার জায়গায় খুব ঝামেলা শুরু করেছিল। তবে বাঘের চামড়ার ভালো দাম পাইনি। মাত্র চার লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছিল চামড়া দু’টি। ঢাকা বা চট্টগ্রামে নিলেই এ দুটোর জন্য ২৪ লাখ টাকা পাওয়া যেতো। কুমির আমরা মারি বিপদে পড়লে। কিন্তু তা আমাদের কোনো কাজে আসে না।

০৬ জুলাই ২০১৪ :: রহমান মাসুদ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,
সূত্র – বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি- রহমান মাসুদ।

ছবি- রহমান মাসুদ।

রহমান মাসুদ
সুন্দরবন থেকে ফিরে: দুই সপ্তাহের সুন্দরবন ভ্রমন। পুরোটাই নৌকা জীবন। মাঝে ২ রাত হোটেলে এসি ছেড়ে ঘুম। বাকি সময় নৌকার তক্তায় খোলা আকাশের নীচে। রোদ- পূর্ণিমার আলো ভরা জোয়ার, শুকনো ভাটা গহীন জঙ্গলের মধ্যে। ছোট্ট নৌকায় রান্না খাওয়া। এতো ঘটনার মধ্য দিয়ে গেছি লিখতে কষ্ট হচ্ছিল।
ডাকাত খুজতে গিয়ে গুলির মুখোমুখি আবার তিনদিন ডাকাতের আতিথিয়েতা। জিম্মীদের আর লুন্ঠিতদের বোবাকান্নার দীর্ঘশ্বাস। দস্যুতার পেছনের গল্প।
পাখি পুলিশের যুদ্ধ যেমন দেখেছি, তেমনি মরা কুমির আর হরিণ শিকারের দৃশ্য ও দেখেছি। মাছ ধরতে গিয়ে সাপ ধরা আর ঝাকি জালের নিচে কুমির, তারপর মৌমাছির কামড়, নৌকায় গাছ থেকে গুঁইসাপের লম্ফ। কোনটা রেখে কোনটা যে বলি! বলে রাখি সুন্দরবন মানে কিন্তু কেবল করমজল, কটকা, হিরণ পয়েন্ট না। কেবল বাংলাদেশেই সুন্দরবন ৬০১৭ বর্গ কিলোমিটার…

সুন্দরবনের দস্যু নামা !
দস্যুরা মুক্তিপণ নেয় মোবাইল ব্যাংকিং এ
অপহরণ বানিজ্যে বন্দী বনজীবী
সুন্দরবনে প্রশাসনের সহায়তায় দস্যুতা!
দস্যু বাহিনীর সন্ধানে সুন্দরবন

ইনফো ডেস্কWriter: ইনফো ডেস্ক (1855 Posts)