সুন্দরবনে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দস্যু নিহত

Gun-Picture-Crossfireসুন্দরবনে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৮) এর সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বনদস্যু মনির বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড খলিলুর রহমান ওরফে খলিল (৩০) নিহত হয়েছেন।

সোমবার (৩১ আগস্ট) ভোরে সুন্দরবন পূর্ব বনবিভাগের শরনখোলা রেঞ্জের ‘দরজার খাল’ এলাকায় এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

পরে ঘটনাস্থালে তল্লাশী চালিয়ে ১২টি আগ্নেঅস্ত্র, বিভিন্ন ধরনের বন্দুকের ১১৪ রাউন্ড গুলি ও দস্যুদের ব্যবহৃত বিভিন্ন দ্রব্যাদি উদ্ধার করে র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা।

র‌্যাব-৮ এর সিও (অধিনায়ক) লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ফরিদুল আলম বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উদ্ধারকৃত আগ্নেয়াস্ত্র ও সরমঞ্জামের মধ্যে রয়েছে, ৪টি সিঙ্গেল ব্যারেল (এক নালা) বন্দুক, ৩টি কাটা রাইফেল, ১টি এয়ারগান, ৩টি এলজি, একটি ডাবল ব্যারেল (দোনালা) বন্দুক, বিভিন্ন ধরনের বন্দুকের ১১৪ রাউন্ড তাজা গুলি, ৩০ রাউন্ড গুলির খোসা, ৬টি ধারালো অস্ত্র, ২টি মোবাইল সেট, ৩টি সিম কার্ড, জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের টোকেন (রসিদ)সহ বিভিন্ন দ্রব্যাদি।

লে. কর্ণেল ফরিদুল আলম জানান, সোমবার ভোরে সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দরজার খাল এলাকায় নিয়মিত টহলের সময় দস্যু বাহিনীর সদস্যরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। এ সময় আত্মরক্ষায় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়।

‘ভোর সাড়ে ৫টা থেকে উভয়ের মধ্যে প্রায় আধ ঘন্টা ব্যাপী চলে গুলি বিনিময়।’

এক পর্যায়ে দস্যুরা বনের গহীনে পালিয়ে গেলে এবং গুলির শব্দ বন্ধ হলে ঘটনাস্থালে তল্লশী শুরু করে র‌্যাব। এসময় ঘটনাস্থাল থেকে খলিলে মৃত দেহসহ ওই সব অস্ত্র এবং সদ্যুদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র উদ্ধার করা হয়।

‘দরজার খালে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা মৃতদেহটি বনদস্যু মনির বাহিনীর সেকেন্ডে ইন কমান্ড খলিলের বলে সনাক্ত করেছে’ বলে জানান তিনি।

উদ্ধারকৃত আগ্নেয়াস্ত্র, অন্যান সমঞ্জাম ও নিহত দস্যুর লাশ বাগেরহাটের শরণখোলা থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলে র‌্যাব সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় জেলে সূত্রে জানা গেছে, নিহত খলিলুর রহমান ওরফে খলিলের বাড়ি বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলায়।

৩১ আগস্ট :: সিনিয়র স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,
বাগেরহাট ইনফো ডটকম।।
এস/আইএইচ/এনআরএ/বিআই
বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1300 Posts)