গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ, আটক-৩

Bagerhat-District-Mapবাগেরহাটে যৌতুকের দাবিতে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর ৩ জনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী।

শনিবার দিবাগত রাতে বাগেরহাট সদর উপজেলার যাত্রাপুর বাজারের একটি চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত রুনা খাতুন (২৪) সদর উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের লাউপালা গ্রামের মুদি দোকানী সাইফুল শেখের স্ত্রী। ঘটনার পর থেকে সাইফুল শেখ পলাতক রয়েছে।

রোববার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে মর্গে নিহতের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন- নিহত গৃহবধূর শশুর আব্দুস সালাম, শাশুড়ি তারু বেগম ও ননদ লাকি আক্তার। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ তাদের আটক করেছে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আড়াই বছর আগে লাউপালা গ্রামের আব্দুস সালাম শেখের ছেলে মুদি দোকানী সাইফুল ইসলামের সাথে একই উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের বিজয়পুর গ্রামের ওহিদ শেখের মেয়ে রুনা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে বিভিন্ন সময় অত্যাচার-নির্যাতন করত রুনার শশুর বাড়ির আত্মীয়রা। এবিষয়ে স্থানীয় ভাবে একাধিক বার সলিশ বৈঠক হয়েছে।

নিহতের বাবা ওহিদ শেখ বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, ‘আমর মেয়ের বিয়ে দেওয়ার পর হইতে এরা যৌতুক নিয়ে সমস্যা করত। আমি তো গরীব মনুষ। তাও এই পর্যন্ত লাখ দুই টাকা আমি যৌতুক দিছি। তার পারও আমার মেয়েরে যৌতুক নিয়ে মাইরধর করে। আমর মেয়েরা তারা মাইরে ফেলাইছে।’

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মাহাবুবুর রহমান মিনে বাগেরহাট ইনফো ডটকমকে বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় গৃহবধূ রুনাকে যাত্রাপুর বাজারের একটি বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে তার মৃত্যু হয়। পরে পুলিশ গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে।

নিহতের শশুর বাড়ির লোকেরা দাবি করেছে সে বিষ পানে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনার পর গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে স্থানীয়রা নিহতের শশুর, শাশুড়ি ও ননদকে আটক করে পুলিশে দেয়। এঘটনায় মডেল থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

২৫ অক্টোবর :: সোহরাব হোসেন রতন, করেসপন্ডেন্ট,
বাগেরহাট ইনফো ডটকম।।
এস/আইএইচ/এনআরএ/বিআই
বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1301 Posts)