বাউবি’র পরীক্ষার্থী কয়েক শ’ পুলিশ সদস্য বিপাকে

পুলিশ বিভাগে কনস্টেবল থেকে উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) পদে পদোন্নতির জন্য আগামী ৩০ অক্টোবর। দেশব্যাপী বিভাগীয় ওই পরীক্ষায় অংশ নিতে যাচ্ছেন প্রায় ৩০ হাজার পুলিশ কনস্টেবল।

এদিকে একই দিনে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) অধীনে রয়েছে ডিগ্রী তৃতীয় ও ষষ্ঠ সেমিস্টারের পরীক্ষা। ফলে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রী পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী এ ধরণের অনেক পুলিশ সদস্য এখন ‘কুল রাখি না শ্যাম রাখি’ অবস্থায় পড়েছেন।

সূত্র জানায়, বাউবি’র ২০১৪ সালের বিএ ও বিএসএস (ডিগ্রী পাস) প্রগ্রামের চলমান পরীক্ষা শুরু হয়েছে ৭ আগস্ট থেকে। সপ্তাহের প্রতি শুক্র ও শনিবার এই পরীক্ষা নেয়া হয়। আগামী ১৪ নভেম্বর এই পরীক্ষা শেষ হবে।

পরীক্ষা সূচি অনুযায়ী আগামী ৩০ অক্টোবর শুক্রবার বাউবি’র ডিগ্রী প্রোগ্রামের আওতায় তৃতীয় সেমিস্টারের ইসলামী স্ট্যাডিজ ও ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের সমাজতত্ত্ব বিষয়ে পরীক্ষা রয়েছে।

এ অবস্থায় কোন পরীক্ষাকে তারা অগ্রাধিকার দিবেন সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না অনেকে। পদোন্নতির এই পরীক্ষাটি শুক্রবারের বদলে সপ্তাহের অন্য কোন কার্যদিবসে গ্রহণের জন্য তারা সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পুলিশ সদর দফতর থেকে কনস্টেবল বা নায়েক পদ থেকে এএসআই পদে পদোন্নতি পরীক্ষার জন্য দেশব্যাপী ৩০ অক্টোবর আইন ও বিধি ব্যবহারিক জ্ঞান লিখিত পরীক্ষার দিন ধার্য্য করা হয়েছে। সারা দেশে প্রায় ত্রিশ হাজার পুলিশ সদস্য এই পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। বাগেরহাট জেলা থেকে এই পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন অন্তত ২০৯ জন পুলিশ কনস্টেবল।

এদের মধ্যে শুধুমাত্র বাগেরহাট মডেল থানায় এ ধরণের অন্তত ৮ জন কনস্টেবল রয়েছেন যাদের বাউবি ডিগ্রী ও বিভাগীয় পদোন্নতি পরীক্ষা শুক্রবার।

এসব নিয়ে নাম প্রকাশ করে কথা বলতে রাজি হননি কোন পদোন্নতিপ্রার্থী। তবে তারা বলছেন, ‘আমরা যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে উচ্চ শিক্ষার জন্য উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছি। আবার আমাদের পদোন্নতিও প্রয়োজন। ফলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের উচিৎ এমনভাবে সমন্বয় করা যাতে আমরা কোন দিক থেকেই ক্ষতিগ্রস্থ না হই।’

অন্যথায় যে কোন একটি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অন্য সুযোগটি হারাতে হবে বলে মন্তব্য করে তারা বলেন, সারা দেশে উভয় সংকটে পড়া এ ধরণের পদোন্নতিপ্রার্থীর সংখ্যা কয়েক শ’ হতে পারে।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহা-পরিদর্শক (আর এন্ড সিপি) মনিরুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই। সবকিছু বিবেচনা করেই পদোন্নতির জন্য পরীক্ষার এই তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘ডিপার্টমেন্টই তাদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ ও পদোন্নতির সুযোগ দিয়েছে। দু’টির মধ্যে যে কোন একটা সুযোগ তাকেই বেছে নিতে হবে। উভয় ক্ষেত্রেই তারা আবার পরীক্ষা দিতে পারবেন’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

২৮ অক্টোবর :: সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট,
বাগেরহাট ইনফো ডটকম।।
এস/আইএইচ/এনআরএ/বিআই
বাগেরহাট ইনফো নিউজWriter: বাগেরহাট ইনফো নিউজ (1300 Posts)