ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ; সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে বিক্ষোভ

BagerhatPhoto-2(17.10.13)বাগেরহাটের চিতলমারীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র সরদার মকিম হোসেন নামে এক ব্যক্তির ব্যবসা তিনটি প্রতিষ্ঠান আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে দুবৃত্তরা।
দোকান মালিক জানান, বুধবার দিবাগত রাতে এই অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে।
আগুন দেয়ার পর তারা ওই দোকানে ঘুমিয়ে থাকা শেখ সাহিদুল (২২) নামে এক যুবককে মারধর করে তার নছিমনেও আগুন ধরিয়ে দেয়।
চিতলমারী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ডুমুরিয়া বাজারে যুবদলের সন্ত্রাসীরা ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পেট্রোল দিয়ে পুড়িয়ে দেয় বলে অভিযোগ করেছে ক্ষতিগ্রস্থের পরিবার। তারা জানান, এতে তাদের অন্তত কুড়ি লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
এদিকে এঘটনায় বৃহষ্পতিবার সকাল থেকে ওই বাজারের বিক্ষুব্দ ব্যবসায়ীরা দোকানপাট বন্ধ রেখে বিক্ষোভ করেছে এবং অবিলম্বে আগুন দেয়ার ঘটনায় জড়িত যুবদল নেতা লিয়াকত ফকিরসহ তার বাহিনীকে গ্রেপ্তার দাবী করেছে।
এঘটনার অভিযোগের তীর যে লিয়াকত ফকিরে বিরুদ্ধে ওই বাজারে ঈদ শুভেচ্ছার বিলবোর্ডে তার নামের পাসে যুবদল নেতা লেখা থাকলেও তার দলের পদবী লেখা নেই।
BagerhatPhoto1(17.10.13)পুড়ে যাওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক সরদার মকিম হোসেন বাগেরহাট ইনফোকে বলেন, গত ১৪ অক্টোবর বেলা বারোটার দিকে আমার দোকানের সামনে পাশ্ববর্তি চৌদ্দহাজারী গ্রামের ভাড়ার মটরসাইকেল চালক হারুণ তালুকদার এবং এই গ্রামের আরেক চালক ফিরোজ শেখ দাড়িয়ে ছিল। এসময় এখানকার একটি শিশু গুলতি নিয়ে আসলে মটরসাইকেল চালক ফিরোজ তা নিয়ে বটগাছের দাড়িয়ে থাকা একটি পাখিকে লক্ষ্য করে গুলতি ছুড়লে বটগাছের একটি ফল হারুণের মটর সাইকেলের উপর পড়ে। ওই ফল পড়াকে কেন্দ্র করে হারুন ও ফিরোজ বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে।
এসময় আমি তাদের নির্বৃত্ত করার চেষ্টা করলে হারুণ আমার উপর চড়াও হয়ে আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। ওই দিন বিকেলে হারুন স্থানীয় যুবদল নেতা লিয়াকত ফকিরকে সঙ্গে নিয়ে আমাকে তুলে নিতে আসলে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জড়ো হয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়।
তিনি আরও বলেন, ওই দিন রাতে আমার ভাতিজী তানিয়া খাতুনকে রাতে লিয়াকত ফকির মোবাইলে ফোন করে বলে তোমাদের ওই দোকান আমি জ্বালিয়ে দেব। তার দুইদিন পর আজ ভোরে লিয়াকত তার দলবল নিয়ে এসে দোকানের চারপাশে পেট্রোল ছিটিয়ে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। এতে আমার দোকানসহ দুটি গুদাম পুড়ে সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয়ে গেছে।
দোকানে চাল, ডাল, তেল,আটা, ময়দা, চিনি, চিংড়ি মাছের খাবারসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব মালামাল পাইকারী ও খুচরায় বিক্রি করি। আগুনে অন্তত কুড়ি লাখ টাকার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন। চলে যাবার সময় তারা বোমা ও গুলি ফাঁকা ছুড়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
চিতলমারী থানার ওসি মোল্লা মনিরুজ্জামান এই প্রতিবেদককে বলেন,  বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে স্থানীয় যুবদল নেতা লিয়াকত ফকিরের নেতর্েৃত্ব একদল সন্ত্রাসী মকিম সরদারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়িয়ে দিয়েছে। এই ঘটনায় সরদার মকিম হোসেন দুপুরে লিয়াকতসহ দশজনের নাম উল্লেখ করে চিতলমারী থানায় একটি মামলা করেছে। তাদের ধরতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।
তবে বিষয়টি নিয়ে যুবদল নেতা লিয়াকত ফকিরের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।
এবিয়য়ে বাগেরহাট জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক মেহেবুবুল হক কিশোর বাগেরহাট ইনফোকে জানান, ডুমুরিয়া বাজারে আমাদের দলের এক সমর্থকের দোকান পুড়িয়ে দিয়েছে শুনেছি। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সে আমার দলের কোন কমিটিতে নেই।
চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মিঞা বাগেরহাট ইনফোকে জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সহয়তা করে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষরা এ অগ্নিকান্ড ঘটিয়ে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে।
এ ঘটনায় দুপুরে লিয়াকতসহ ১০ জনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতার অভিযান শুরু হয়েছে বলে জানান তিনি।
১৭ অক্টোবর ২০১৩ :: নিউজ ডেস্ক,
বাগেরহাট ইনফো ডটকম।।
অলীপ ঘটক/এসআইএইচ-নিউজ রুম/বিআই
ইনফো ডেস্কWriter: ইনফো ডেস্ক (1855 Posts)