সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে এক বছরে নিহত ২৫

সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে বাঘের আক্রমণে নিহতের পরিবারের সংখ্যা।

সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি বাঘের আক্রমণ বৃদ্ধি

সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি বাঘের আক্রমণ বৃদ্ধি

সম্প্রতি কালে খাদ্যাভাবে কারণে বাঘের আক্রমণের ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। গত দু’মাসে ৭ ব্যক্তিসহ ২০১২ সালে বাঘের আক্রমণে নিহত হয়েছে কমপক্ষে ২৫ ব্যক্তি। নিহতরা হলো, ৩০শে জানুয়ারি খুলনার কয়রা উপজেলার সাতহালিয়া গ্রামের মোহর আলী গাজীর পুত্র রহমত আলী, ৩১শে জানুয়ারি সাতক্ষীরার শ্যামনগরের যতীন্দ্রনগর গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলী মোড়লের পুত্র কাওছার আলী মোড়ল, পাইকগাছার গড়ইখালী বাসাখালী গ্রামের সোনাইগাজীর পুত্র শফিকুল ইসলাম, ১লা ফেব্রয়ারি খুলনার কয়রা উপজেলার কালনা গ্রামের মৃত আকবর আলী বিশ্বাসের পুত্র আবদুল মজিদ গাজী, ৫ই ফেব্রয়ারি শ্যামনগর কালিঞ্চি গ্রামের উপেন্দ্র নাথ মুন্ডার পুত্র রমেশ মুন্ডা, ১৫ই ফেব্রয়ারি দাকোপের ভোজনখালী গ্রামের জামাই সৈয়দ আলীর মানসিক ভারসাম্যহীন পুত্র ওমর ফারুক জিহাদী, ২৬শে মার্চ শ্যামনগর কালিঞ্চি গ্রামের আবুল হোসেন গাজীর পুত্র আয়ুব আলী, ৩রা এপ্রিল শ্যামনগর শ্যামনগর কালিঞ্চি কলোনি এলাকার আমির হোসেন, ৭ই এপ্রিল সরণখোলার চালিতাবুনিয়া গ্রামের কাঞ্চন বয়াতীর পুত্র শফিকুল ইসলাম, ২৩শে এপ্রিল শ্যামনগর পূর্ব কৈখালী গ্রামের মৃত সাখাওয়াত আলীর পুত্র আবদুল করিম, ২৫শে এপ্রিল সাতক্ষীরা রেঞ্জের চুনকুড়ি নামক স্থানে সাহাবাজ আলী নামে এক মৌয়াল, ২৬শে এপ্রিল কয়রার জোরসিং গ্রামের সোহেল মোল্লা, ৩রা মে কয়রার উত্তর বেদকাশীর রুস্তম আলী সরদারের পুত্র আবু সাবাহ সরদার, ১২ই মে শ্যামনগর পূর্ব কৈখালী গ্রামের মুনসুর দফাদারের পুত্র আজিবর, ১৩ই মে শ্যামনগর দয়াখালী গ্রামের শহর গাজী পুত্র হাজের আলী গাজী, ১৪ই মে শ্যামনগর সোরা গ্রামের জুম্মান আলীর পুত্র শহর আলী, ২৫শে জুন শ্যামনগর কালিঞ্চি গ্রামের মুনসুর মোল্লার পুত্র আবদুল মজিদ মোল্লা, ১৫ই জুলাই শ্যামনগর কৈখালী গ্রামের মৃত কেনা গাজীর পুত্র আমজাদ গাজী, ১৪ই সেপ্টেম্বর কয়রার ভাগবা গ্রামের মৃত কওছার গাজী পুত্র নজরুল ইসলাম, ১৫ই অক্টোবর শ্যামনগর উপ-মীরগম এলাকার অজেত গাইনের পুত্র মাজেদ গাইন, ১৯শে নভেম্বর কয়রার আংটিহারা গ্রামের রহিম শেখের পুত্র নজরুল শেখ, ২২শে নভেম্বর কয়রার ভান্ডারপোল গ্রামের খায়মত গাজীর পুত্র নজরুল ইসলাম, ২৯শে নভেম্বর শ্যামনগর ভোলাখালী গ্রামের আবদুস সাত্তার নামের এক ব্যক্তি, ১৪ই ডিসেম্বর কয়রার জায়গীর মহল গ্রামের মৃত ইউছুপ আলীর পুত্র মোনতাজ আলী, পাইকগাছার ধামরাইল গ্রামের মোকছেদ গাজীর পুত্র শওকত গাজী, সর্বশেষ ২৫শে ডিসেম্বর কয়রার রশিদ সানার পুত্র ওলিউল্লাহ নামে এক যুবকসহ কমপক্ষে ১ বছরে ২৫ ব্যক্তি নিহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার মানুষের প্রতিমুহূর্ত আতঙ্কে দিন কাটছে।

Inzamamul HaqueWriter: Inzamamul Haque (160 Posts)